জামের ১০ স্বাস্থ্য উপকারিতা

জামের এর ১০ স্বাস্থ্য উপকারিতা

জামের এর ১০ স্বাস্থ্য উপকারিতা: 


ব্ল্যাকবেরি/কালো জাম রোসাস বংশের অন্তর্ভুক্ত এবং ২০০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তাদের ঔষধি গুনের জন্য ব্যবহৃত হয়। আঠারো শতাব্দীতে গাউট চিকিত্সার জন্য ব্ল্যাকবেরি ব্যবহার ইউরোপে এতটাই প্রভাবশালী ছিল যে এটি 'গাউট বেরি' নামে খ্যাত ছিল।

এখানে ব্ল্যাকবেরি/জামের এর শীর্ষ ১০ স্বাস্থ্য উপকারিতা দেওয়া হলো :

১. ফাইবার পূর্ণ: এক কাপ ব্ল্যাকবেরিতে  গ্রাম ফাইবার রয়েছে, যা এক কাপ ব্র্যান ফ্লেক্সের চেয়ে বেশি। কালোজামের উচ্চ ফাইবার আপনাকে শক্তি দেয় এবং অস্বাস্থ্যকর স্ন্যাক খাবার থেকে দূরে রাখে। ফাইবার একটি দুর্দান্ত হজম সহায়ক।

২. অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে পূর্ণ: ব্ল্যাকবেরির অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট গুলি ক্রমাগত ঝাঁকুনি দিচ্ছে যা শরীরকে সুরক্ষা দেয়। এটি ফেনলিক অ্যাসিড, ফ্ল্যাভোনয়েডস এবং ফ্ল্যাভোনোলগুলি পূর্ণ রয়েছে। বিশেষত ব্ল্যাকবেরিগুলিতে উপস্থিত অ্যান্থোসায়ানোসাইডগুলি ক্ষতিকারক অক্সিজেন মুক্ত অণুর বিরুদ্ধে কাজ করে এবং তাদের ক্রিয়া প্রতিহত করে - যার অর্থ তারা দেহের জন্য প্রাকৃতিক ডিটক্স হিসাবে কাজ করে।
জামের স্বাস্থ্য উপকারিতা
৩. মস্তিষ্কের শক্তি বৃদ্ধি করে: মেডিকেল জার্নাল "নিউট্রিশনাল নিউরোসায়েন্স" দাবি করেছে যে কালোজাম আপনার মোটর এবং জ্ঞানীয় দক্ষতা বজায় রাখতে সহায়তা করে। সমীক্ষায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যে, এটি ভারসাম্য এবং স্মৃতি শক্তি উন্নত করে। ব্ল্যাকবেরিতে থাকা পলিফেনল এন্টি অক্সিডেন্টের স্তরগুলি পর্যাপ্ত পরিমাণে বাড়িয়ে তোলে।

৪. উন্নত ওরাল : ব্ল্যাকবেরি খাওয়ার ফলে ওরাল ব্যাকটেরিয়া মারা যায়। ওরেগন স্টেট ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় বলা হয়েছে যে, ব্ল্যাকবেরিতে গ্যালিক অ্যাসিড, রুটিন এবং এলজিক এসিড রয়েছে। গবেষণায় এই সিদ্ধান্তে আসা হয়েছে যে ব্ল্যাকবেরি প্যাথোজেনগুলি হত্যা করতে পারে এবং এন্টিভাইরাস  পিরিওডিয়ন্টাল সংক্রমণের চিকিত্সায় সহায়ক।

৫.ক্যান্সার বিরোধী: ব্ল্যাকবেরির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য ফুসফুসের ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার এবং খাদ্যনালী ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। তাদের মাইক্রো নিউট্রিয়েন্ট রয়েছে যা কেমো প্রভেভেটিভ প্রভাব প্রয়োগ করে এবং ক্যান্সারজনিত কোষগুলির বিস্তার রোধ করে।

৬. স্বাস্থ্যকর হৃদপিন্ড: অ্যান্থোসায়ানিনের মতো ফ্ল্যাভোনলগুলি হৃদপিন্ডকে সুরক্ষা দেয়। উচ্চ মাত্রার ম্যাগনেসিয়াম এবং ফাইবার ধমনিকে বাধা থেকে রক্ষা করে এবং রক্ত ​​প্রবাহকে উদ্দীপিত করে। ম্যাগনেসিয়ামের উচ্চ মাত্রা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে এবং হার্ট অ্যাটাক থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে।

৭.ইমিউনিটি বুস্টার: ব্ল্যাকবেরিতে থাকা ফাইটোস্টোজেনস, ভিটামিন এবং খনিজ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং বিভিন্ন রোগজীবাণুর সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে। এবং শরীরকে সংক্রমণ এবং মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করে।

৮. স্বাস্থ্যকর ওজন: ব্ল্যাকবেরিগুলিতে চিনির পরিমাণ কম এবং ফাইবার বেশি, যা স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখতে সহায়তা করে।

৯.স্বাস্থ্যকর হাড়: ব্ল্যাকবেরিতে পাওয়া ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়াম স্বাস্থ্যকর হাড় বজায় রাখতে সহায়তা করে। ক্যালসিয়াম হাড়কে শক্তিশালী করে এবং ম্যাগনেসিয়ামের উপাদানগুলি দেহে ক্যালসিয়াম এবং পটাসিয়াম শোষণকে সহায়তা করে। এবং ক্যালসিয়াম নিয়ন্ত্রণে ফসফরাস সহায়তা করে এবং শক্ত হাড় গঠনে সহায়তা করে এবং সঠিক সেলুলার কার্যক্রমে অবদান রাখে।

১০. রক্ত ​​জমাট বাঁধা: ব্ল্যাকবেরিতে ভিটামিন-K বেশি থাকে যা রক্তের জমাট বাঁধাতে সহায়তা করে এবং স্বাস্থ্যকর রক্ত ​​এবং সংবহন করে। ভিটামিন K প্রোটিন পরিবর্তনের জন্যও কার্যকর এবং হাড়কে অস্টিওপরোসিস থেকে রক্ষা করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

No comments:

Post a Comment