ভেন্না বা রেড়ী

সাধারণত বর্ষাকালে ভেন্নার চারা গজায়। প্রতি বছর হেমন্ত ও শীতকালে ভেন্নার ফুল-ফল হয়। সবুজ ফলের গায়ে নরম নরম কাঁটা থাকে। কাটা এতোই নরম যে গায়ে ফোঁটে না। গোলাকৃতির ফল শুকালে বেশ শক্ত হয়ে ফেটে যায়। ভেতর থেকে কয়েকটি কালো বা ধুসর রঙের বীজ পাওয়া যায়।

আগে গ্রামের যত্রতত্র বাড়ির আশপাশ ও রাস্তার বা নদীর ধারে ভেন্না গাছ জন্মাত এমনি এমনি। এখন এর দেখা পাওয়া যায় না।

এর বীজ থেকে তেল বানানো য়ায়।এর তেল ভেন্নার তেল, রেড়ীর তেল বা ক্যাস্টরঅয়েল নামে পরিচিত।
ভেন্নার তেল বানানোর প্রক্রিয়া: এ সম্পর্কে স্থানীয়রা বলেন, প্রথমে পাকা ফল সংগ্রহ করে তা থেকে বীচি বের করে নিতে হয়। সংগৃহিত বীচি প্রথমে সিদ্ধ করে রোদে দিতে হয়। তারপর বীচিগুলো কড়াইয়ে ভেজে পাথরে পিসতে হয়। পাথরে পিসার পর গুড়োগুলো বড় পাতিলে পানিতে জাল দিতে হয়। জাল দিতে দিতেই পানির উপরেই তেলের অংশগুলো বলের মত গোল গোল হয়ে পানিতে ভাসতে থাকে। পানিতে ভাসমান সেই গোলাকার বলগুলো বড় চামচ দিয়ে উঠিয়ে নিয়ে সংরক্ষণ করতে হয়। সেইগুলোই মূলত ভেন্নার তৈল। এই তেলের রং সয়াবিন তৈলের মত। তবে গন্ধটি ভিন্ন। তারা জানায় ১ কেজি তৈলের জন্য আড়াই কেজি ভেন্নার বীজের প্রয়োজন হয়।
- এর এন্টিব্যাক্টেরিয়াল এবং এনটিফাঙ্গাল প্রপার্টিস স্ক্যাল্পের ইনফেকশন প্রতিরোধে সাহায্য করে যা চুল পড়া কমিয়ে আনে অনেকটাই।
- ক্যাস্টর অয়েল স্ক্যাল্পে ভালো মতো ম্যাসাজ করলে এটি স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দেয়।
- এতে রয়েছে এন্টিঅক্সিডেন্ট যা চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য উপকারী।
- এটি ওমেগা ৯ ফ্যাটি আসিড এবং এসেন্সিয়াল ভিটামিনস এ সমৃদ্ধ যা চুল কে মজবুত এবং উজ্জল করে ও পুনরায় চুল বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

ব্যবহার করবেন যেভাবে: যেহেতু ক্যাস্টর অয়েল খুব ঘন তাই এটি চুলে লাগানোর পূর্বে রেগুলার চুলের তেল (কোকোনাট অয়েল, অলিভ অয়েল, আমন্ড অয়েল) এর সাথে মিশিয়ে লাগালে সুবিধা হবে। স্ক্যাল্পে ভালো মতো ম্যাসাজ করে কমপক্ষে ২ ঘণ্টা রাখতে হবে। তেল লাগানোর পর হেয়ার ক্যাপ অথবা হট টাওয়েল চুলে পেঁচিযে রাখলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। এরপর চুলে শ্যাম্পূ করে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। আরও ভালো ফল চাইলে তেল লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিতে পারেন।

চুলের গ্রোথ বাড়ানোর জন্য হট অয়েল ট্রিটমেন্ট হিসেবেও ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে তেল গরম করে নিতে হবে। প্রক্রিয়া টি সহজ করার জন্য ক্যাস্টর অয়েলের বোতলটি গরম পানির একটি গ্লাসে কিছুক্ষণ রেখে দিন। এরপর স্ক্যাল্পে ভালো মতো ম্যাসাজ করূন।

উপরোক্ত নিয়ম অনুযায়ী ব্যবহার করলে আশা করি এক মাসের মধ্যেই ফল পাবেন।এই তেলের প্রচুর চাহিদা আছে কসমেটিকস এড় দোকানে, দাম অনেক ভাল

ক্যাস্টর অয়েল এর কিছু হেয়ার মাস্ক: এক চা চামচ মধু, দুই চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল এবং একটি ডিম ভালো মতো মিশিয়ে চুলে ভালো মতো লাগান। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পূ করে ফেলুন। এটি আপনার নিষ্প্রাণ এবং রুক্ষ চুলের উজ্জলতা বাড়িয়ে একে নরম করবে।

সমান পরিমাণ ক্যাস্টর অয়েল, তিলের তেল এবং অলিভ অয়েল ভালো মতো মিশিয়ে চুলে এবং স্ক্যাল্পে ভালো মতো লাগিয়ে গরম তোয়ালে দিয়ে পেঁচিযে ৩০ মিনিট রাখুন। এরপর শ্যাম্পূ করে ফেলুন। এটি একটি খুবই কার্যকর হেয়ার টনিক হিসেবে কাজ করে যা চুল এবং স্ক্যাল্পকে খুব ভালো ভাবে কন্ডিশন্ড করে এবং চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

No comments:

Post a Comment