কামরাঙ্গার ঔষধিগুণ

কামরাঙ্গার ঔষধিগুণ
কামরাঙ্গা একটি চিরসবুজ ছোট মাঝারি আকৃতির গাছের টকমিষ্টি ফল। বৈজ্ঞানিক নাম Averrhoa carambola, ইংরেজি নামঃ Chinese gooseberry, Carambola। ফল কাঁচা অবস্থায় সবুজ এবং পাকলে হলুদ। কামরাঙ্গা টক স্বাদযুক্ত বা টকমিষ্টি হতে পারে। কোন কোন গাছে একাধিকবার বা সারাবছরই ফল পাওয়া যায়। এটি ভিটামিন A, O, C এর ভাল উৎস। সেপ্টেম্বর থেকে জানুয়ারিতে ফল পাওয়া যায়।মৌসুমী ফল কামরাঙ্গার রয়েছে দারুন পুষ্টিগুণ। পুষ্টি চাহিদা মেটাতে কামরাঙ্গা একটি আদর্শ ফল।

পুষ্টিগুণঃ প্রতি একশ গ্রাম কামরাঙ্গায় শক্তি মেলে ৩১ কিলো ক্যালরি। শর্করা ৬.৭৩ গ্রাম, চিনি ৩.৯৮ গ্রাম, খাদ্য ফাইবার ২.৮ গ্রাম, স্নেহ ০.৩৩ গ্রাম, প্রোটিন ১.০৪ গ্রাম, প্যানটোথেনিক অ্যাসিড (B5) ০.৩৯ মিলিগ্রাম, ফোলেট (B9) , ভিটামিন সি ৩৪.৪ মিলিগ্রাম ছাড়াও কামরাঙ্গায় পাওয়া যাবে ভিটামিন এ, ফসফরাস, পটাশিয়াম ও দস্তা।

ঔষধিগুণঃ
কামরাঙ্গার ঔষধিগুণও বিস্ময়কর। সুস্বাস্থ্যের জন্য খাদ্য তালিকায় কামরাঙ্গা রাখতে পারেন প্রতিদিন।

১। অন্ত্রের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে: কামরাঙ্গা রুচি ও হজমশক্তি বাড়ায়। পেটের ব্যথায় কামরাঙ্গা খুব উপকারি। কামরাঙ্গায় আছে এলজিক এসিড। এটি অন্ত্রের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

২। রক্ত পরিষ্কারকঃ কামরাঙ্গা রক্ত পরিশোধন করে। কামরাঙ্গার পাতা ও কচি ফলে আছে ট্যানিন, যা রক্ত পরিস্কার করে।

৩। সর্দিকাশিতে উপকারিঃ কামরাঙ্গা পুড়িয়ে ভর্তা করে খেলে ঠাণ্ডাজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি মেলে। দীর্ঘদিনের জমাট সর্দি বের করে দিয়ে কাশি উপশম করে। শুকনো কামরাঙ্গা জ্বরের জন্য খুব উপকারি।

৪। কৃমিনাশকঃ কামরাঙ্গা পাতা ও ডগার গুঁড়া খেলে জলবসন্ত ও বক্রকৃমি নিরাময় হয়। কৃমির সমস্যা সমাধানে কামরাঙ্গা ফলও উপকারি। কামরাঙ্গার রসের সাথে নিমপাতা মিশিয়ে খেলে কৃমি দূর হয়।

৫। অর্শ রোগে উপকারিঃ ২ গ্রাম পরিমাণ শুকনো কামরাঙ্গার গুঁড়া পানির সঙ্গে রোজ একবার করে খেলে অর্শ রোগে উপকার পাওয়া যায়। আর বাতের ব্যথায়ও কামরাঙ্গা বেশ উপকারি।

বিঃদ্রঃ যাদের কিডনি সমস্যা আছে তাদের জন্য কামরাঙ্গা ক্ষতিকর। তারা ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতিরেকে কোন ফল খাবেন না।

No comments:

Post a Comment